দুবাইয়ের মাঠে টাইগার পেসারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে পেসার মুস্তাফিজুর রহমানের। এখন পর্যন্ত এখন পর্যন্ত মোট ১০ ম্যাচে ১৩ উইকেট নিয়েছেন তিনি।

২০১৪ সালে যুব বিশ্বকাপের পাশাপাশি পিএসএলে লাহোর কালান্দার্স হয়ে সেখানে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে তার। তাই আরব আমিরাতের কন্ডিশনে তার উপরেই সবচেয়ে বেশি আস্থা রাখতে চাইবে বাংলাদেশ দল।

২০১৪ সালে যুব বিশ্বকাপে ছয় ম্যাচে ১৮ গড়ে নয় উইকেট নিয়েছিলেন মুস্তাফিজ। আর পিএসএলের গেল আসরে পাঁচ ম্যাচে ৪ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি।

মুস্তাফিজ ছাড়া বোলারদের মধ্যে সেখানে খেলেছেন মেহেদি হাসান মিরাজের। সাকিব আল হাসান অলরাউন্ডার হওয়ার কারণে এই লিস্টে তাঁকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

মুস্তাফিজের সঙ্গে মিরাজও খেলেছেন ২০১৪ সালের যুব বিশ্বকাপে। সেবার সেবার ৬ ম্যাচ খেলে ৬ উইকেট শিকার করেছিলেন ডানহাতি এই স্পিনার।

যেহেতু মুস্তাফিজ মিরাজ ছাড়া আর কোন বোলার আরব আমিরাতের কন্ডিশনে খেলেন নি তাই এদের দুজনের অভিজ্ঞতাকেই কাজে লাগাতে চাইবেন অধিনায়ক মাশরাফি। মুস্তাফিজ সেখানে খেলার ব্যাপার সংবাদ সম্মেলনে আগেই জানিয়েছিলেন,

‘সেখানকার গরম প্রায় আমাদের দেশেরই মত। অত আহামরি পরিবর্তন নেই। আমি ২০১৪ সালে খেলেছিলাম, অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে। তখন যেই মাঠে খেলেছি সেই মাঠেই এবার খেলা হবে। সব কিছু প্রায় আমাদের মতই হবে। এখন এসিসি কি উইকেট দেয়া সেটা দেখার বিষয়।’

আর পেসারদের মধ্যে রুবেল-রনিদের চেয়ে মুস্তাফিজের উপরেই আস্থা বেশি রাখবেন টাইগারর কাপ্তান। এখন দেখার বিষয় মাশরাফির আস্থার কতটুক প্রতিদান দিতে পারেন ‘তুরুপের তাস’ মুস্তাফিজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here